কিভাবে ফেসবুক থেকে আয় করা যায় | ইনকাম করার ৫টি উপায়

সম্মানিত পাঠক বন্ধুরা, আজকের এই লেখাতে আমরা কিভাবে ফেসবুক থেকে আয় করা যায়? এই বিষয়ে আপনাদের কিছু আইডিয়া শেয়ার করব। আপনাদের যদি ফেসবুক থেকে ইনকাম করার স্বপ্ন থাকে, তাহলে আপনারা আমাদের আজকের এই আর্টিকেলটি অনুসরণ করতে পারেন। এখানে যে সকল আইডিয়া গুলো আপনাদের জন্য শেয়ার করা হবে। এগুলো খুবই বিশ্বস্ত এবং কার্যকর কিছু আইডিয়া। যেগুলোর মাধ্যমে আপনারা ফেসবুক থেকে খুব সহজে ইনকাম করতে পারবেন।

ফেসবুক একটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হলেও বর্তমানে ফেসবুক একটি অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান। এখানে বাণিজ্য পরিচালনা করার জন্য অনেক ভাল সুযোগ তৈরি হয়েছে। যারা সাধারণত অনলাইন ভিত্তিক ব্যবসা পরিচালনা করে থাকেন, তারা তাদের বাণিজ্য পরিচালনা করতে ফেসবুক ব্যবহার করে থাকেন। ফেসবুকের মাধ্যমে অনেক ক্রেতা-বিক্রেতা সংগ্রহ করা যায়।

এইজন্য ফেসবুক বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পাশাপাশি একটি অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জনের মাধ্যম। তবে ফেসবুক থেকে অর্থ উপার্জন করার জন্য আপনাকে জানতে হবে, কিভাবে ফেসবুক থেকে আয় করা যায়? এই বিষয়ে সম্পর্কে ইতিমধ্যে ফেসবুকে অনেক ধরনের অর্থ উপার্জন করার উপায় রয়েছে। এক্ষেত্রে আপনাকে ঠিক করতে হবে, আপনি কোন মাধ্যম গুলো ব্যবহার করে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে চান?

বাংলাদেশের মধ্যে বর্তমানে অনেক ছাত্র-ছাত্রী ও বেকাররা অনলাইনে কাজ করার জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি অনুসরণ করে থাকেন। এই ক্ষেত্রে যারা ক্রিয়েটিভ পদ্ধতিগুলোকে অনুসরণ করেন, তারাই মূলত অনলাইন থেকে সত্তিকারের অর্থ উপার্জন করতে পারেন। এক্ষেত্রে অর্থ উপার্জন করার জন্য ফেসবুক আপনার জন্য একটি কার্যকর মাধ্যম হতে পারে।

এই জন্য এই লিখাটি আপনাকে মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য বলবো। লিখাটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার পরে যদি কোন কিছু না বুঝে থাকেন, তাহলে আমাদেরকে কমেন্ট করে প্রশ্ন করতে পারেন। তবে অনুরোধ করছি লিখাটি না পড়ে ও কোন কিছু পরিপূর্ণভাবে না বুঝে প্রশ্ন করবেন না। কারণ এখানে আমরা আপনাদের যেন প্রশ্ন করতে না হয়, এমনভাবে আলোচনা করব। যেন সবকিছু আপনারা বুঝতে পারেন।

এক নজরে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সমূহ

ফেসবুক থেকে আয় করার উপায় সমূহ:

এখানে আমরা ফেসবুক থেকে আয় করার ৫ থেকে ৬ টি উপায় আপনাদের সাথে শেয়ার করব। এই উপায় গুলো আপনারা যদি ভালোভাবে আয়ত্ব করতে পারেন, তাহলে আপনি কোন মাধ্যমটির মাধ্যমে ফেসবুক থেকে ইনকাম করবেন? সে বিষয়ে আপনার ভাল ধারণা অর্জন হবে।

ফেসবুক থেকে আয় করার উপায় সমূহ
ফেসবুক থেকে আয় করার উপায় সমূহ

কোন মাধ্যমটিতে আপনি ভালো উপকার করতে পারবেন? এই বিষয়ে জানার জন্য অবশ্যই আপনাকে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়তে হবে। তাহলে আপনি কাজ করার ধরন এবং কোন পদ্ধতিতে কি ধরনের কাজ করতে হবে? সে বিষয়ে জানতে পারবেন।

ফেইসবুক ভিডিও ক্রিয়েটর হিসেবে ফেসবুক থেকে আয় করুন

ভিডিও ক্রিয়েটর দের জন্য ইউটিউব ছিল একমাত্র প্ল্যাটফর্ম। যেটার মাধ্যমে সবাই ভিডিও তৈরি করে সেই ভিডিও গুলো ইউটিউবে আপলোড করে সেখান থেকে বিজ্ঞাপন, স্পনসর্শিপ, ও অন্যান্য মাধ্যমে উপার্জন করতো।

কিন্তু বর্তমান সময়ে সেই ইউটিউব একমাত্র প্ল্যাটফর্ম হিসেবে যে বাধাটি ছিলো, সেটি আর নাই। এখন আপনি চাইলে ইউটিউবে যেভাবে একজন ইউটিউব ক্রিয়েটর হিসেবে ভিডিও তৈরি করে অর্থ উপার্জন করতে পারতেন। ঠিক একই পদ্ধতিতে একজন ফেসবুক ভিডিও ক্রিকেটার হিসেবে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে ইউটিউব এর চেয়ে ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করা আরও সহজ এবং খুব দ্রুত ফেসবুক থেকে অর্থ উপার্জন শুরু করা যায়। অন্যদিকে ইউটিউব এর চেয়ে ফেসবুক ভিডিও ক্রিকেটারদেরকে বেশি পরিমাণ অর্থ প্রদান করে থাকেন। 

ফেইসবুক ভিডিও ক্রিয়েটর হিসেবে ফেসবুক থেকে আয়
ফেইসবুক ভিডিও ক্রিয়েটর হিসেবে ফেসবুক থেকে আয়

সুতরাং এক্ষেত্রে যদি আপনি সবচেয়ে সহজ একটি কাজ করার প্লাটফর্ম নির্বাচন করেন, তাহলে ইউটিউব এর চেয়ে একজন নতুন ভিডিও ক্রিকেটার হিসেবে ফেসবুক আপনার জন্য সহজ হতে পারে। এবং খুব দ্রুত ভিডিওগুলো প্রমোট করে ফেসবুক পেজ মনিটাইজেশন করা খুব সহজ একটি অর্থ উপার্জনের মাধ্যম ফেসবুক।

আরও পড়ুন:   ঘরে বসে পার্ট টাইম জব | ঘরে বসে ইনকাম করার ৫টি সুযোগ

কিভাবে ফেসবুকে ভিডিও মনিটাইজেশন পাওয়া যায়?

ফেসবুকে ভিডিও মনিটাইজেশন করে আয় করার জন্য প্রথমে আপনাকে একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করতে হবে। কারণ সাধারণ যে প্রোফাইল গুলো তৈরি করা হয়ে থাকে। সেগুলোতে ভিডিও আপলোড করলে, সেই ভিডিও গুলো এখনো ফেসবুক মনিটাইজেশন করার অনুমতি প্রদান করেনি। আপনি যদি ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে অর্থ উপার্জন করতে চান, তাহলে অবশ্যই আপনাকে একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করতে হবে।

টাকা সঞ্চয় করার কৌশল | কিভাবে টাকা সঞ্চয় করা যায়

বর্তমানে ইউটিউব এর মধ্যে অনেকগুলো ভিডিও আপলোড করা হয়েছে। যেখানে খুব সুন্দর ভাবে দেখানো হয়েছে, কিভাবে ফেসবুক পেজ তৈরি করতে হয়? এই বিষয়ে যদি আপনারা একটি ভিডিও গাইড পেতে চান, তাহলে কমেন্ট করে জানাতে পারেন।

তবে যারা অনলাইনে একটু নির্দেশনা পেলেই যেকোনো কাজ নিজে নিজে করে ফেলতে পারেন। তাঁদের জন্য আমরা একটু ধারনা দিব, কিভাবে একটি ফেসবুক পেজ আপনি তৈরি করবেন সে বিষয়ে। ফেসবুক পেজ তৈরি করার জন্য প্রথমে আপনাকে আপনার সাধারন ফেসবুক প্রোফাইলে যেতে হবে। 

দুইটি পদ্ধতিতে আপনি পেজ তৈরি করতে পারবেন
দুইটি পদ্ধতিতে আপনি পেজ তৈরি করতে পারবেন

উপরের ছবিটি যদি লক্ষ্য করেন, তাহলে আপনি খুব সহজে বুঝতে পারতেছেন।

এখানে দুইটি পদ্ধতিতে আপনি পেজ তৈরি করতে পারবেন।

আপনি যেকোনো একটি জায়গায় ক্লিক করতে পারেন। যদি সরাসরি পতাকা আইকনের উপর ক্লিক করেন, তাহলে আপনাকে একটা ধাপ কম এগোতে হবে। অর্থাৎ আপনি এক ধাপ আগেই পেজ তৈরি করতে পারবেন। তবে চাইলে আপনি দ্বিতীয় এরো চিহ্ন তে ক্লিক করতে পারেন। যেহেতু এই মাধ্যমটি সবার ফেসবুকে একই রকম। তাই এই কমন মাধ্যমটি এখানে দেখাচ্ছি।

Pages বাটন এর উপর ক্লিক করতে হবে
Pages বাটন এর উপর ক্লিক করতে হবে

এখন দুই নাম্বার এরো চিহ্ন তে দেখানো বাটনে ক্লিক করার পর উপরের ছবির মত আপনি দেখতে পাবেন। এখান থেকে আপনাকে Pages বাটন এর উপর ক্লিক করতে হবে। 

পেজ তৈরি করা
পেজ তৈরি করা

তাহলে আপনি উপরের ছবির মত দেখতে পাবেন। এখানে আপনার যদি ইতিমধ্যে কোন পেজ তৈরি করা থাকে, সেই পেজগুলোর সিরিয়াল এখানে দেখতে পাবেন। এখানে আমার অনেকগুলো পেজ তৈরি করা রয়েছে। এজন্য আমি আমার ব্যক্তিগত পেজগুলোকে গোপন করে রেখেছি।

যেন এগুলো পাবলিক হয়ে না যায়। তবে এখানে যদি আপনার তৈরি করা কোন পেইজ না থাকে, তাহলে আপনি কোন পেজের সিরিয়াল এখানে দেখতে পাবেন না। এই ক্ষেত্রে আপনাকে একটি নতুন পেজ তৈরী করার জন্য আমাদের দেখানো পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে।

আপনি এখান থেকে Create অপশনে ক্লিক করবেন। 

পেজ তৈরি করার মূল পর্ব
পেজ তৈরি করার মূল পর্ব

Create বাটনের উপর ক্লিক করার পর আপনি উপরের ছবিটির মত দেখতে পাবেন। এখন আপনাকে নিচের যে বাটনটি রয়েছে, সেই বাটনের উপরে ক্লিক করতে হবে। তাহলে আপনি পেজ তৈরি করার মূল পর্বে চলে যাবেন।

পেইজের নাম দিতে হবে
পেইজের নাম দিতে হবে

এখন আপনাকে উপরের ছবির মত দেখাচ্ছে। এই জায়গায় আপনাকে আপনার পেইজের নাম দিতে হবে। আপনি কোন নাম দিয়ে পেজ তৈরী করতে যাচ্ছেন সেই নামটি। মনে রাখবেন অবশ্যই একটি ব্র্যান্ড নাম আপনি নির্বাচন করবেন। যেন আপনার পেজটি মানুষের পছন্দ হয় এবং দ্রুত তারা আপনাকে ফলো করে। তবে আপনাকে ফলো করার জন্য আপনার কনটেন্ট গুলো হচ্ছে অন্যতম কারণ।

যদি আপনি ভালো একজন ভিডিও ক্রিয়েটর হতে পারেন, তাহলে অবশ্যই আপনার পেজ সবাই অনুসরণ করবে। এবং এখান থেকে ভালো লাইক কমেন্ট এবং ফলো আর পাওয়া যাবে। 

পেওনিয়ার থেকে বিকাশে টাকা আনার নিয়ম

উদাহরণস্বরূপ আমি একটি নাম লিখে দেখিয়েছি। আপনারা আপনার পছন্দের একটি পেজের নাম নির্বাচন করবেন। সেই নাম দিয়ে আপনাকে পরবর্তী ধাপে এগিয়ে যেতে হবে।

যেহেতু আমি স্যাম্পল হিসাবে একটু আপনাদের দেখিয়েছি। পরিপূর্ণ এখানে দেখাচ্ছি না। যদি আপনারা এই বিষয়ে পরিপূর্ণ জানতে চান, তাহলে আমাকে কমেন্ট করতে পারেন। আমি একটি ভিডিও আপনাদের জন্য এখানে যুক্ত করে দেব। 

ফেসবুক গ্রুপ থেকে টাকা আয় করার ৩ টি পদ্ধতি: 

যারা ফেসবুক ব্যবহার করে থাকেন, তারা অবশ্যই ফেসবুক গ্রুপের কথা শুনেছেন এবং দেখেছেন। অনেকেই বর্তমানে অনেকগুলো গ্রুপের মধ্যে জয়েন হয়ে আছেন। ইচ্ছে করে হোক বা অনিচ্ছাকৃতভাবে অনেকগুলো গ্রুপের মধ্যে আমরা জয়েন হয়ে থাকি।

কিন্তু আপনি হয়তো জানেন না এই ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে অনেক ভালো টাকা আয় করা যায়।

আরও পড়ুন:   অনলাইন গেম খেলে টাকা ইনকাম  2024 | ১২ টি সেরা গেমস

আজকে আমি এমন তিনটি পদ্ধতি আপনার সাথে শেয়ার করবো। যেগুলো ব্যবহার করে আপনি ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

১. অ্যাফিলিয়েট ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করে ইনকাম

ইতিমধ্যে আপনার মনে হয়তো প্রশ্ন জেগেছে। এখনো পর্যন্ত আপনি কোনদিনও শোনেননি, অ্যাফিলিয়েট করে ফেসবুক গ্রুপ থেকে আয় করা যায়।

এই বিষয়ে যদি আপনি জেনে না থাকেন, তাহলে এই আর্টিকেলটি হচ্ছে আপনি জানার একটি মাধ্যম। বর্তমানে ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে বাংলাদেশের মধ্যে হাজার হাজার ছাত্র-ছাত্রী ও বেকাররা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনেক ভালো অর্থ উপার্জন করতেছে।

এমনকি আমি নিজেও আমার ব্যক্তিগত ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে আবার ওয়েবসাইট ট্রাফিক জেনারেট করে অনেক ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারি। তবে এখানে আমি আপনাদেরকে ওয়েবসাইটে ট্রাফিক সরবরাহ করে উপার্জনের কথা বলছি না। সরাসরি ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আপনি উপার্জন করতে পারেন। সে বিষয়টি আপনার সাথে শেয়ার করতে যাচ্ছি।

অ্যাফিলিয়েট ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করে ইনকাম
অ্যাফিলিয়েট ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করে ইনকাম

বর্তমানে এমন অনেকগুলো অ্যাফিলিয়েট প্ল্যাটফর্ম রয়েছে। যারা আপনার যদি একটি ভাল সোস্যাল কমিউনিটি থাকে, তাহলে আপনাকে মার্কেটিং করার জন্য অ্যাপ্রভাল দিয়ে থাকেন।

কোন কোন প্লাটফর্ম গুলো ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে বা ফেসবুক থাকলে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের জন্য অ্যাপ্রভাল দিয়ে থাকে। সে বিষয়ে যারা জানতে চান, তারা কমেন্ট করে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনাদের জন্য আমরা এরকম কয়েকটি ওয়েবসাইটের লিস্ট দেওয়ার চেষ্টা করব।

এখন কথা হচ্ছে আপনি যদি এপ্রোভাল পেয়ে যান। 

কিভাবে ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে অর্থ উপার্জন করবেন?

সহজ কথায় আপনারা সবাই জানেন। যারা এক্টিভ মার্কেটিং করেন, তারা বিভিন্ন কোম্পানির এফিলিয়েট লিংক শেয়ার করে থাকেন। এক্ষেত্রে আপনার ফেসবুক গ্রুপের ডেসক্রিপশন এ অথবা পিন পোস্টে আপনি সুন্দর করে কিছু বর্ণনা সহ যে কোম্পানির অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং আপনি করবেন।

সে কোম্পানির অ্যাফিলিয়েট লিংকটি যুক্ত করে দেবেন এবং নিয়মিত উক্ত গ্রুপে একটিভিটি রাখবেন। এবং বিভিন্ন টিপস ট্রিকস শেয়ার করবেন। পাশাপাশি আপনার সেই অ্যাফিলিয়েট প্রোডাক্টটি ক্রয় করার জন্য আপনার গ্রুপের মেম্বারদের কে অনুপ্রাণিত করবেন। তাহলে দেখবেন প্রতিনিয়ত আপনার অ্যাফিলিয়েট সেলস বৃদ্ধি হতে থাকবে। এবং আপনি ভালো অ্যাফিলিয়েট ইনকাম জেনারেট করতে পারবেন।

২. প্রোডাক্ট ও সার্ভিস প্রমোশনাল গ্রুপ থেকে আয় করুন

প্রোডাক্ট ও সার্ভিস প্রমোশনাল গ্রুপ থেকে আয় করার জন্য প্রথমে আপনার গ্রুপটাকে একটা পর্যায়ে আপনাকে নিয়ে যেতে হবে। যেন মানুষ আপনার গ্রুপের প্রতি আগ্রহ প্রকাশ করে এবং বিভিন্ন ব্র্যান্ড ও উদ্যোক্তারা যেন আপনার গ্রুপের মধ্যে বিজ্ঞাপন দিতে আগ্রহী হয়। সেই ব্যবস্থা আপনাকে করতে হবে। 

সহজ কথায় আপনার গ্রুপে যখন ১০ থেকে ১৫ হাজারের মতো মেম্বার হয়ে যাবে। তখন থেকে আপনি বিভিন্ন কোম্পানির প্রোডাক্ট ও সার্ভিস প্রমোশন করার দায়িত্ব নিতে পারেন। অথবা কেউ যদি সরাসরি আপনার গ্রুপে কোন প্রোডাক্ট ও সার্ভিস প্রমোশন করতে চাই। তাহলে প্রতিটি পোস্টের জন্য নির্দিষ্ট একটি টাকা আপনি নির্ধারণ করতে পারেন। 

প্রমোশনাল গ্রুপ থেকে আয় করুন
প্রমোশনাল গ্রুপ থেকে আয় করুন

বর্তমানে বাংলাদেশের মধ্যে এমন অনেকগুলো গ্রুপ রয়েছে। যাদের গ্রুপ গুলোতে পোস্ট করতে হলে আপনাকে প্রতি পোস্টের জন্য নির্দিষ্ট একটি এমাউন্ট পেমেন্ট করতে হয়। আপনি যদি আপনার পোষ্টের জন্য টাকা প্রদান না করেন, তাহলে আপনার বিজ্ঞাপন সম্পর্কিত পোস্টটি তারা অ্যাপ্রুভ করবেনা। যখন আপনি টাকা পেমেন্ট করবেন, তখনই তারা আপনার পোষ্টটি অ্যাপ্রুভ করবে। 

কোথায় টাকা ইনভেস্ট করা যায় | বিনিয়োগ করার সঠিক জায়গা

এক্ষেত্রে দেখবেন যখন আপনার গ্রুপটির মেম্বার যত বেশি বৃদ্ধি পাবে, ততবেশি মানুষ আপনার গ্রুপে বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য আপনার সাথে যোগাযোগ করতে থাকবে। যত বেশি গ্রুপের মেম্বার বৃদ্ধি পাবে, ততবেশি আপনি প্রতি পোষ্টের জন্য টাকাও বৃদ্ধি করতে পারেন। এভাবে করে আপনি ফেসবুক গ্রুপের বিভিন্ন কোম্পানির সার্ভিস ও পণ্যের বিজ্ঞাপন দেওয়ার সুযোগ দিয়ে ফেসবুক গ্রুপ থেকে আয় করতে পারেন।

৩. গ্রুপের সদস্যদেরকে মনিটাইজ করে অর্থ উপার্জন করুন

এটি খুব সহজ একটি পদ্ধতি ফেসবুক গ্রুপের সদস্যদের কে মনিটাইজ করে অর্থ উপার্জন করা। এক্ষেত্রে আপনি সরাসরি নিজের কোনো পণ্য বা সার্ভিস গ্রুপের মেম্বারদের কাছে বিক্রয় করতে পারেন, অথবা তাদেরকে আপনার ওয়েবসাইটে ট্রাফিক হিসেবে কনভার্ট করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। 

সদস্যদেরকে মনিটাইজ করে অর্থ উপার্জন করুন
সদস্যদেরকে মনিটাইজ করে অর্থ উপার্জন করুন

সুতরাং বুঝতে পেরেছেন। যদি আপনি গ্রুপের সদস্যদের মনিটাইজ করতে চান, তাহলে তাদেরকে না হয় আপনার পণ্য বা সেবা বিক্রয় করতে হবে। না হয় সরাসরি তাদেরকে আপনার ওয়েবসাইটে নিয়ে গিয়ে বিজ্ঞাপন দেখানোর মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন। 

আরও পড়ুন:   ঘরে বসে হাতে লিখে আয় করার ৫ টি দারুণ উপায়

ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল ব্যবহার করে ফেসবুক থেকে আয় করুন:

ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল হচ্ছে ফেসবুকের একটি কনটেন্ট মনিটাইজেশন সেবা। যদি আপনার কাছে একটি ব্লগ ওয়েবসাইট থাকে, তাহলে সে ব্লগ ওয়েবসাইটে পোস্ট করা আর্টিকেলগুলো ফেসবুক পেজের মাধ্যমে মনিটাইজ করে এখান থেকে আপনি অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

এই ক্ষেত্রে আপনার পেইজে নির্দিষ্ট কোন লাইক কমেন্ট বা ফলোয়ার অর্জন করতে হবেনা। তবে আপনার পেজটি অবশ্যই বিশ্বাসযোগ্য এবং পুরাতন একটি পেজ হতে হবে। সাধারণত ফেসবুক নতুন পেজ তৈরি করার সাথে সাথে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল অ্যাপ্রুভ করে না।

ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল থেকে আয়
ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল থেকে আয়

আর এই ক্ষেত্রে অবশ্যই মনে রাখতে হবে। আপনার ওয়েবসাইটে যে কনটেন্টগুলো আপনি পোস্ট করবেন। সেই কনটেন্টগুলো অবশ্যই ইউনিক হতে হবে।

অর্থাৎ আপনি অন্য কোন ওয়েবসাইট থেকে কপি করে যদি আপনার ব্লগ ওয়েবসাইটে পোস্ট করে থাকেন, তাহলে এই ধরনের কনটেন্ট গুলো দিয়ে আপনি ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল অ্যাপ্রুভ করতে পারবেন না। এজন্য অবশ্যই আপনার কনটেন্ট গুলো পাঠকদের জন্য কার্যকর হতে হবে। যেন পাঠকরা আপনার কনটেন্ট গুলো পড়তে আগ্রহী হয়। 

এফ-কমার্স ফেসবুক পেজ তৈরি করে ফেসবুক থেকে আয় করুন

বর্তমান সময়ের ছাত্র-ছাত্রী ও বেকার যুবকদের জন্য ফেসবুকে যে ই-কমার্স বিজনেস করা খুবই সাধারন একটি ব্যবসায় পরিণত হয়েছে। এই ব্যবসাটি করার জন্য আপনাকে শুধুমাত্র ফেসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে ধারণা অর্জন করতে হবে। অর্থাৎ কিভাবে আপনি ফেসবুকে ক্রেতাদেরকে অনুপ্রাণিত করলে আপনার পণ্যগুলো তারা ক্রয় করতে ইচ্ছা পোষণ করবে। সে বিষয়টি আপনাকে বুঝতে হবে। 

এফ-কমার্স পেজ তৈরি করে ফেসবুক থেকে আয় করুন
এফ-কমার্স পেজ তৈরি করে ফেসবুক থেকে আয় করুন

ফেসবুকের মাধ্যমে ই-কমার্স ব্যবসা করলে এটাকে অনেকেই f-commerce নামে অভিহিত করে থাকে। এখন আপনি আপনার মত করে কোন একটা বলতে পারেন। যদি এফ-কমার্স হলে আপনার ভাল মনে হয়, তাহলে এফ-কমার্স বলতে পারেন। যদি ই-কমার্স বললে আপনি ভাল বুঝেন, তাহলে আপনি ই-কমার্স বলতে পারেন। 

ই-কমার্স ব্যবসা করার জন্য কোথা থেকে প্রডাক্ট সংগ্রহ করবেন? 

এটি খুব সহজ একটি প্রশ্ন। বর্তমান সময়ে আপনার আশেপাশের অনেক দোকানদাররা তাদের বিক্রয় বৃদ্ধি করার জন্য ছাত্র-ছাত্রীদের কে এই ধরনের সুবিধা প্রদান করে থাকে। যেটা কে অনেকটা অনলাইনের ভাষায় রিসেলার ব্যবসা বলা হয়ে থাকে। অর্থাৎ আপনি আপনার পরিচিত কোন চাচা বা মামার কাছ থেকে পণ্য সংগ্রহ করে আপনার ফেসবুক পেজে বিক্রি করতে পারেন।

এক্ষেত্রে আপনার ফেসবুক পেজ অথবা গ্রুপ সে কোন মাধ্যম ব্যবহার করতে পারেন। অথবা দুইটি একসাথে ব্যবহার করতে পারেন। মূল কথা হচ্ছে, আপনাকে এই ক্ষেত্রে পণ্য বিক্রয় করার মাধ্যম জানতে হবে। এবং কিভাবে আপনার পণ্যগুলো মার্কেটিং করলে ক্রেতারা প্রোডাক্টগুলো ক্রয় করতে চাইবে? সেই বিষয়টি আপনাকে বুঝতে হবে। তাহলেই আপনি ফেসবুক পেজ অথবা গ্রুপের মাধ্যমে ই-কমার্স বিজনেস করে স্বাবলম্বী হতে পারবেন। 

একজন প্রফেশনাল ফেসবুক মার্কেটার হিসেবে ফেসবুক থেকে আয় করুন

আপনি হয়তো এই বিষয়ে জানেন না। বর্তমান সময়ে ফেসবুক মার্কেটারদের অনেক মূল্যায়ন করা হয়। সারা বিশ্বের মধ্যে সবগুলো কোম্পানি ফেসবুকে প্রদান সোশ্যাল মিডিয়া হিসেবে নির্বাচন করেন। যেখানে তাদের পণ্য গুলোকে খুব সহজেই তারা মার্কেটিং করে ক্রেতাদের কাছে পৌছাতে পারেন।

ফেসবুক মার্কেটার হিসেবে ফেসবুক থেকে আয় করুন
ফেসবুক মার্কেটার হিসেবে ফেসবুক থেকে আয় করুন

এখন কথা হচ্ছে কোম্পানিগুলো যখন ক্রেতাদেরকে ফেসবুকে তাদের পণ্য ক্রয় করার জন্য অনুপ্রাণিত করতে চাই। তখন তাদেরকে বিভিন্ন ফেসবুক মার্কেটারদের সহায়তা গ্রহণ করতে হয়। এক্ষেত্রে আপনি যদি একজন ফেসবুক মার্কেটের হিসেবে নিজেকে প্রকাশ করেন, তাহলে আপনাকে অবশ্যই কোন না কোন কোম্পানি তাদের প্রোডাক্ট গুলোর মার্কেটিং করার জন্য হায়ার করে নিবে।

কিভাবে একজন ফেসবুক মার্কেটার হবে?

একজন প্রফেশনাল ফেসবুক মার্কেটার হওয়ার জন্য রকেট সাইন্স পড়াশোনা করার কোন প্রয়োজন নাই। যদি আপনি ফেসবুকে কিভাবে পণ্য বিক্রয় করতে হয়? এবং আপনার পণ্য সম্পর্কে যদি আপনি সঠিক তথ্য ক্রেতাদের কাছে পৌঁছাতে পারেন, তাহলে আপনি একজন ফেসবুক মার্কেটের হিসেবে কাজ করতে পারবেন।

এক্ষেত্রে আপনাকে ফেসবুক মার্কেটিং এর বিভিন্ন টিপস নতুন নতুন আইডিয়া অনুসরণ করতে হবে। এই আইডিয়া ও টিপসগুলো পাওয়ার জন্য আপনি আমাদের এই ব্লগ ওয়েবসাইটটি অনুসরণ করতে পারেন। এবং ইউটিউবে বিভিন্ন টিউটোরিয়াল দেখতে পারেন। যার মাধ্যমে আপনি একজন ফেসবুক মার্কেটার বিশেষজ্ঞ হতে পারবেন। 

পাঠকদের জন্য সর্বশেষ আলোচনা:

এই আর্টিকেলটির মধ্যে আমরা ফেসবুক থেকে কিভাবে আয় করা যায়? এবং ফেসবুক থেকে আয় করার বিভিন্ন উপায় নিয়ে আলোচনা করেছি। কিভাবে ফেসবুক থেকে আয় করা যায়? এই বিষয়ে যারা আমাদেরকে প্রশ্ন করেছিলেন। তাঁরা আশা করতেছি এই লেখা থেকে সঠিক উত্তর পেয়েছেন। এখানে আমরা যেই ফেসবুক ইনকামের উপায় গুলো শেয়ার করেছি।

সেগুলো আপনারা অনুসরণ করলে অবশ্যই ফেসবুক থেকে ইনকাম করতে পারবেন। এবং এই কাজগুলো করার জন্য আপনাদেরকে কোন কম্পিউটার ব্যবহার করতে হবে না। এবং দামি কোন স্মার্টফোন ও ক্রয় করতে হবেনা। আপনার হাতে থাকা স্মার্টফোনটি ব্যবহার করে আপনি এই উপায়গুলো বাস্তবায়ন করে ফেসবুক থেকে আয় করতে পারবেন। 

মন্তব্য করুন