ই ক্যাপ এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন

ই ক্যাপ এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। যারা ই ক্যাপ নিয়মিত গ্রহণ করেন তাদের এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জানা জরুরি। ই-ক্যাপ হল একটি ভেষজ সম্পূরক যা শক্তি বৃদ্ধি, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদানের জন্য। ই-ক্যাপে ইফেড্রার নির্যাস রয়েছে, যা হাজার হাজার বছর ধরে ঐতিহ্যবাহী চীনা ওষুধে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

ই-ক্যাপ একটি জনপ্রিয় খাদ্যতালিকাগত সম্পূরক হয়ে উঠেছে কারণ এটি একটি কার্যকর ওজন কমানোর সহায়ক হিসেবে কাজ করে, শক্তির মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে এবং মানসিক স্বচ্ছতার সাথে সাহায্য করার জন্য কাজ করে বলে দেখানো হয়েছে।

E Cap এর জনপ্রিয়তার ফলে এর ব্যবহারের সাথে যুক্ত অনেক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। অনেক লোক এই পণ্যটি গ্রহণ করার পরে মাথাব্যথা, ক্লান্তি এবং বমি বমি ভাবের মতো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।

ই ক্যাপ এর কিছু স্বাভাবিক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াঃ

মানুষ এটা স্বাভাবিক ব্যবহার করতে পারেন। তবে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ব্যবহার করা উত্তম। সব ঔষধের কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকে। ই ক্যাপ এর কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জেনে নেওয়ার যাক।

আরও পড়ুন:   ক্যালবো ডি ট্যাবলেট এর উপকারিতা ও টিপস

ই ক্যাপ পেশী দুর্বলতা সৃষ্টি করতে পারে:

E-cap হল একটি প্রোটিন যা নিউরনের কোষের ঝিল্লিতে পাওয়া যায়। এটি পেশীগুলিতেও পাওয়া যায় এবং এটি পেশীগুলিকে নমনীয় রাখতে সহায়তা করে।

ই-ক্যাপ দুটি অংশ নিয়ে গঠিত: আলফা-গ্লুটামেট নামক একটি অ্যামিনো অ্যাসিড এবং একটি ফসফেট গ্রুপ।  এইভাবে তারা ই-ক্যাপ তৈরি করতে একে অপরের সাথে বন্ড গঠন করতে সক্ষম হয়।

আপনার যখন এই উপাদানগুলির মধ্যে একটির ঘাটতি থাকে, তখন আপনার পেশীগুলি আরও শক্ত হয়ে যায়, যা নমনীয়তা, দুর্বলতা এবং ব্যথা হ্রাস করতে পারে।

আপনার যদি ই-ক্যাপ নিয়ে কোনো সমস্যা হয় বা আপনি যদি ই-ক্যাপ নেওয়ার পর দুর্বল বোধ করেন তাহলে আমি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব পরীক্ষা করার পরামর্শ দিচ্ছি।

ই ক্যাপ এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে ডায়রিয়াও হতে পারে:

E Cap এর সবচেয়ে সাধারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে একটি হল ডায়রিয়া। এটি এমন একটি উপসর্গ যা ঘটে যখন আপনার শরীর পাকস্থলী থেকে পর্যাপ্ত পরিপাককারী অ্যাসিড তৈরি করতে পারে না যাতে খাবার ভেঙে যায় এবং সেগুলি থেকে পুষ্টি শোষণ করা যায়। এর ফলে আপনার শরীরে বর্জ্য পদার্থ চলে যেতে পারে, যার ফলে ডায়রিয়া হতে পারে।

আপনার পাকস্থলীতে বর্ধিত অ্যাসিডিটির কারণেও ডায়রিয়া হতে পারে, যা আলসার বা পাকস্থলীর আস্তরণের জ্বালা সৃষ্টি করে। এটি অতিরিক্ত উপসর্গের কারণ হতে পারে, যেমন পেটে ব্যথা এবং বমি।

E Cap এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণেও ঘন ঘন মাথাব্যথা হতে পারে:

ই ক্যাপ মেজাজ পরিবর্তনের জন্য পরিচিত, যা আপনাকে খিটখিটে এবং অস্থির বোধ করতে পারে। এর ফলে বিষণ্নতা দেখা দিতে পারে, যা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়।

আরও পড়ুন:   Acifix 20 mg কিসের ঔষধ: ব্যবহার, উপকারিতা এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

E Cap এর আরেকটি সাধারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হল হৃদস্পন্দন, যা দ্রুত হৃদস্পন্দন যা মাথা ঘোরা বা অজ্ঞান হয়ে যায়। এটি সাধারণত ঘটে যখন আপনি প্রথম ওষুধ গ্রহণ শুরু করেন এবং এটি সময়ের সাথে সাথে চলে যেতে পারে। যাইহোক, যদি সমস্যাটি বেশ কয়েক দিন পরে থেকে যায়, তবে এটি সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন।

অনিদ্রা প্রতিরোধ করার জন্য আপনার ডাক্তার ঘুমানোর অন্তত দুই ঘন্টা আগে E Cap খাওয়ার পরামর্শ দেবেন।

E Cap কিছু ক্ষেত্রে চোখের দৃষ্টিশক্তিকে প্রভাবিত করতে পারে:

• ব্যক্তি অস্পষ্ট দৃষ্টি বা দৃষ্টিশক্তি ম্লান অনুভব করতে পারে, যা দৃষ্টিশক্তি হারাতে পারে।
• এমন একটি সম্ভাবনা রয়েছে যে ব্যক্তিটি তার দৃষ্টিশক্তি হারাতে পারে যদি সে একটি দীর্ঘ সময় ধরে E Cap ব্যবহার করে, তাই এটি সুপারিশ করা হয় যে আপনি একবারে বেশি E Cap ব্যবহার করবেন না৷
• আপনি যদি একটানা 3 ঘন্টার বেশি সময় ধরে E Cap ব্যবহার করে থাকেন, তাহলে নিশ্চিত করুন যে আপনি ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত আপনার ওষুধ খান।
• এই পণ্য এবং এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা ভাল হবে। কারণ এই পণ্যটি ব্যবহার করার ফলে আপনার দৃষ্টিশক্তি প্রভাবিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

জ্বর এবং মাথা ঘোরা E Cap এর অন্যান্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া:

জ্বর এবং মাথা ঘোরা E Cap এর অন্যান্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। এই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া গুরুতর নয়, কিন্তু তা লক্ষণীয় হতে পারে। আপনি যদি ওষুধ খাওয়ার সময় এই লক্ষণগুলি অনুভব করেন, তাহলে আপনার ডাক্তার বা ফার্মাসিস্টের কাছে রিপোর্ট করুন যাতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তাদের চিকিৎসা করা যায়।

আরও পড়ুন:   e cap 200 mg এর উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন

আপনি যদি গর্ভবতী হন, আপনার ডাক্তার বা ফার্মাসিস্টের সাথে গর্ভাবস্থায় এই ওষুধটি ব্যবহার করার সুবিধা এবং ঝুঁকি নিয়ে আলোচনা করুন। এই ওষুধটি গর্ভাবস্থায় ব্যবহারের জন্য অনুমোদিত নয়।

উপসংহারঃ

স্পষ্টতই, E Cap এর কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে এবং সেগুলি নিয়ে আলোচনা করা দরকার ছিল তাই আলোচনা করেছি। এই পণ্যের প্রধান উদ্বেগ হল DMAA নামক একটি সিন্থেটিক উপাদানের উপস্থিতি। এই উপাদানটি কানাডা, যুক্তরাজ্য এবং অস্ট্রেলিয়াতে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। শুধুমাত্র একটি উপাদান বৈধ এবং FDA অনুমোদিত এর মানে এই নয় যে এটি মানুষের ব্যবহারের জন্য নিরাপদ। জৈব সবুজ সুপারফুডগুলি যে কোনও খামারে ব্যবহারের জন্য বৈধ, তবে এর অর্থ এই নয় যে আমাদের কেবল মিছরির মতো সেগুলি খাওয়া উচিত।

“ই ক্যাপ এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন”-এ 5-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন