মার্কেটিং জব ইন্টারভিউ জয়ী হওয়ার ৪টি উপায়

মার্কেটিং বিষয়ে বাংলাদেশের মধ্যে অনেক বেশি চাকরি পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে যারা দ্রুত একটি চাকরির সন্ধান করতে চাচ্ছেন, তাদের জন্য মার্কেটিং জব সহজ হতে পারে। যদি আপনি এই সকল উপায়গুলো জেনে যান। কিভাবে আপনি মারকেটিং জব জয়ী হতে পারেন? সে বিষয়ে আজকের এই লেখাতে আমরা কিছু সাধারন কৌশল আপনাদের সাথে শেয়ার করব। যেন আপনি বাংলাদেশের যে কোন একটি কোম্পানির হয়ে দ্রুত একটি মার্কেটিং এর চাকরি সংগ্রহ করতে পারেন।

মার্কেটিং বিষয়ে কেন চাকরি করবেন?

অনেকেই মার্কেটিং এর চাকরি করতে চান না। কিন্তু মার্কেটিং বিষয়ে যদি আপনি প্রাথমিকভাবে চাকরি করেন। তখন আপনার চাকরির প্রফেশনে আপনি অনেক কিছু শিখতে পারবেন। এবং পরবর্তীতে যেকোনো ভালো কোম্পানিতে চাকরি পেতে আপনার জন্য সহজ হবে। এ জন্য প্রাথমিকভাবে আপনি যেকোনো একটি ছোটখাটো কোম্পানির মার্কেটিং জব করতে পারেন। মারকেটিং জব অনেক ভালো যদি আপনি কিছু কৌশল জেনে যান।

মার্কেটিং জব ইন্টারভিউ বিজয়ী হওয়ার জন্য কিছু কৌশল:

তাহলে আমরা মার্কেটিং বিষয়ে তারা চাকরি জন্য প্রস্তুত। তারা এই ৪টি কৌশল জেনে নিন। যেন আমরা পরবর্তীতে যখন মার্কেটিং চাকরির জন্য ইন্টারভিউ দিতে যাব। তখন ইন্টারভিউতে যেন আমরা আমাদের প্রশ্নগুলোর উত্তর সহজভাবে দিতে পারি। এবং তাদেরকে ইমপ্রেস করতে পারি।

আরও পড়ুন:   ২০২৪ সালে আপনার পাঁচটি নতুন বিষয়ে শেখা প্রয়োজন

সুন্দর পরিপাটি হয়ে ইন্টারভিউ দিতে যেতে হবে:

কোন একটা বিষয় যদি দেখতে সুন্দর না হয়, তাহলে সেটা কেউ ক্রয় করতে চাই না। ঠিক যারা মার্কেটিং বিষয়ে চাকরি করে থাকেন, তাদের কেউ দেখতে যদি একটু হ্যান্ডসাম ভদ্র মনে না হয়। তাহলে কেউ তাদেরকে চাকরিতে জয়েন করতে চাইনা। সাধারণত যাদের দেখতে একটু সুন্দর লাগে এবং যারা স্মার্ট ভাবে কথাবার্তা বলতে পারে। তাদেরকে মার্কেটিংয়ের চাকরিতে সবচেয়ে বেশি নির্বাচিত করা হয়।

কেননা যখন কোনো ক্রেতা কোন প্রোডাক্ট এন্ড সার্ভিস করার আগ্রহ প্রকাশ করে। তখন তার সাথে যদি সুন্দর ভাবে সেই পণ্য বা প্রোডাক্ট নিয়ে সুন্দরভাবে আলোচনা করা না যায়। তাহলে ক্রেতা কিন্তু সে পণ্যটি ক্রয় করতে পারে না। আবার এমন অনেক রাত হয়েছে। যারা বিক্রেতাদের আচার-আচরণ গুলোকে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। যদি একজন বিক্রেতা সুন্দরভাবে তার সাথে কথা বলতে পারেন এবং তাকে সম্মান প্রদর্শন করেন। তাহলে সে লজ্জাবোধ করে যেকোনো একটি পণ্য ক্রয় করার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করে থাকে।

সুতরাং আপনি যদি মার্কেটিং বিষয়ে চাকরি করার জন্য আগ্রহী হয়ে থাকেন। তাহলে ইন্টারভিউ দিতে যাওয়ার সময় অবশ্যই সুন্দর পরিপাটি ড্রেস পরিধান করে যাবেন। এবং সুন্দরভাবে কথা বলার জন্য চেষ্টা করবেন।

কিছু ইম্প্রেসিভ শব্দের ব্যবহার:

ইন্টারভিউতে কথার ছলে ছলে এমন কিছু শব্দ ব্যবহার করুন। যেগুলো আপনার সামনে যারা বসে আছে তাদেরকে যেন ইমপ্রেস করতে পারে। এটি অনেক বড় একটি কৌশল যেটির মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই ইন্টারভিউতে বিজয়ী হতে পারবেন। আমাদের মধ্যে অনেকেই কথা বলাটা প্র্যাকটিস করে না। কিন্তু আপনার অবশ্য কথা বলা প্র্যাকটিস করতে হবে। যেন আপনি যে কাউকে আপনার কথা দিয়ে দুর্বল করতে পারেন।

আরও পড়ুন:   বিকাশ থেকে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম

সাধারণত যারা আপনার ইন্টারভিউ গ্রহণ করবেন। তারা এমন পার্সন কে নির্বাচন করার চেষ্টা করবে। যেন তাদের প্রোডাক্ট গুলো সম্পর্কে মানুষকে আপনি কথার মাধ্যমে ইমপ্রেস করতে পারেন। যারা সাধারণত কথা বলা প্র্যাকটিস করে থাকেন, তাদের মধ্যে এমন অনেকগুলো গোপন শব্দ ভান্ডার রয়েছে। যেগুলোকে তারা খুব সহজে ব্যবহার করে ক্রেতাদের কে খুশি করতে পারে। এবং তাদেরকে যেকোনো বিষয় বিক্রয় করতে পারে।

মার্কেটিং বিষয়ে আপনার পূর্বের কোন অভিজ্ঞতা আছে কিনা?

যদি এমন একটি প্রশ্ন আপনাকে করে বসেন, তখন আপনি হয়তো যদি আগে কোন মার্কেটিং এর চাকরি না করে থাকেন। তাহলে আপনার উত্তর না বলে দিবেন। কিন্তু এখানে সরাসরি না উত্তর দেওয়া যাবে না। প্রাথমিকভাবে আপনি একটু নেগেটিভ বলেই প্রশ্নটির উত্তর পজেটিভ দিকে নিয়ে যেতে পারেন। যেমন আপনি বাড়ির বিভিন্ন জিনিসপত্র বিক্রি করেছেন। এবং অথবা আপনি আপনার বন্ধুর সাথে কিছুদিন শেয়ার ভাবে কাজ করেছেন বিভিন্ন মার্কেটিং বিষয়ে পণ্য বিক্রয়ের ক্ষেত্রে।

একেবারে অবিশ্বাস্য করা মিথ্যা কথা বলা যাবে না। অবশ্যই আপনার বিষয়টি অবশ্যই বিশ্বাসযোগ্য হতে হবে। এক্ষেত্রে আপনি এমন একটি গল্প আগে থেকে বানিয়ে রাখবেন। যেটা যারা আপনার ইন্টারভিউ গ্রহণ করবে। তারা যেন বিশ্বাস করেন। অবশ্যই ইন্টারভিউতে বিজয়ী হওয়ার জন্য মার্কেটিং সেক্টরের বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে আপনার প্রথম থেকে স্টাডি করা প্রয়োজন। ইন্টারভিউ দিতে যাওয়ার আগে আপনি এই বিষয়ে একটু পড়াশোনা করে থাকেন, তাহলে অবশ্যই আপনার জন্য মার্কেটিং বিষয়ে ইন্টারভিউ দেওয়া সহজ হবে।

আরও পড়ুন:   বাংলাদেশের সকল পাইকারি বাজারের ঠিকানা ও টিপস

কাজের বেতন কত দিতে হবে?

মার্কেটিং এর চাকরি তে সাধারণত বিক্রয়ের উপরে পার্সেন্টিস হিসেবে বেতন দিয়ে থাকেন। যদিও একটি বেসিক বেতন প্রাথমিকভাবে ধরা হয়। এক্ষেত্রে আপনাকে যদি এমন কোনো প্রশ্ন করা হয়, তাহলে আপনি প্রথমে কত টাকা প্যাকেট স্যালারি দিতে হবে? সেটি ঠিক করে দিবেন না। এক্ষেত্রে আপনি এভাবে বলতে পারেন যে, আপনি যদি পণ্য সঠিকভাবে বিক্রয় করতে পারেন। এবং কোম্পানির জন্য ভালো কিছু করতে পারেন। তখনই আপনি ভালো মানের একটি সেলারি আশা করবেন।

তবে আমি প্রথমেই আমার কাজের পরীক্ষা দিতে চাই। এবং এখানে আমি কিভাবে কোম্পানির জন্য ভালো কিছু করতে পারি? সেটা আমি প্রথমে দেখাতে চাই। সে বিষয়টিও উল্লেখ করবেন। তখন তারা আপনার প্রতি আরো বেশি ইমপ্রেস হয়ে যাবে। এবং আপনাকে নিয়োগ দেওয়ার জন্য তারা পাগল হয়ে যাবে।

কেননা আপনি তাদেরকে এমন ভাবেই আকৃষ্ট করতেছেন। যেন আপনি তাদেরকে হয়তো পরবর্তীতে এমন কিছু দিতে থাকছেন। যেগুলো তাদের প্রয়োজন। মিথ্যা করো আশা দেওয়া যাবেনা। যেটি আপনার সাধ্যের মধ্যে থাকবে সেরকম পাসওয়ার্ডগুলো তাদেরকে দিবেন। যেন মার্কেটিং এর চাকরি করতে আপনার ভালো লাগে।

মন্তব্য করুন